সাতকানিয়া সিইসিতে আপনাকে স্বাগতম...


বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল ও ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। সকল মানুষ মনে করে উন্নয়নের প্রধান বাধা হচ্ছে অতিরিক্ত জনসংখ্যা। কিন্তু আমরা মনে করি জনসংখ্যাই হচ্ছে আমাদের সম্পদ। প্রযুক্তিগতভাবে যে মানুষগুলো দক্ষ তারা দেশের জন্য বড় সম্পদ। স্বাধীনতার ৪২ বছর পর বর্তমান সরকারের একটি বড় সিদ্ধান্ত হচ্ছে ২০১৪ সালে দেশের ৩০টি উপজেলায় ৩০টি কমিউনিটি ই সেন্টার স্থাপন করা। আর সাতকানিয়া কমিউনিটি ই সেন্টার হচ্ছে তাদের একটি। সাতকানিয়া কমিউনিটি ই সেন্টার (www.satkaniacec.info) দেশের সকল ই সেন্টারগুলো থেকে আলেদা বৈশিষ্ট্য ধারণ করে থাকে। ২০১৪ সালের ৪ এপ্রিল এই সেন্টারটি উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক জনাব মো: আবদুল মান্নান। বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড ২০১৫ সালে এটিকে কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টার হিসেবে অনুমোদন দেয়। মানে সকাল ৯:০০ টা থেকে সন্ধ্যা ৬:০০ টা শনিবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত নিরলস ভাবে সাধারণ মানুষকে আইটি সেবা দেয়ার জন্য আমরা ৪ জন নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছি। কল এন্ড সলিউশন – Call and Solution (CNS) সাতকানিয়া কমিউনিটি ই সেন্টার এর একটি উদ্ভাবনী প্রকল্প। আর CNS হচ্ছে দেশের সর্ববৃহৎ সার্ভিস গেইটওয়ে। এই সার্ভিস গেইটওয়ের মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে দেয়া হবে ১০০ এর বেশি অনলাইন সেবা। ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ইং তারিখ প্রথম চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক CNS এর উদ্ভাবক হিসেবে জনাব মো: বেলাল...

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর বার্তা

চট্টগ্রাম জেলার দক্ষিণে বিদ্যমান উপজেলাসমূহের মধ্যে আয়তনে সর্ববৃহৎ উপজেলা সাতকানিয়া। পাহাড় ও সমতল ভূমি সম্বলিত ২৮০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের সাতকানিয়া উপজেলায় ১টি পৌরসভা ও ১৭টি ইউনিয়ন রয়েছে। বাংলাদেশের একমাত্র Border Guard Training Center & School এ উপজেলায় অবস্থিত। এ উপজেলায় দোহাজারী-কালিয়াইশ ১০০ মেগাওয়াট ডিজেল চালিত বিদ্যুৎ প্লান্ট রয়েছে। সাঙ্গু ও ডলু নদী এখানকার দুটি বড় নদী। ডলু নদীর ভাঙ্গন এবং আকস্মিক বন্যা সাতকানিয়ার অন্যতম প্রধান সমস্যা। কৃষি প্রধান এ উপজেলায় উন্নতমানের গোল আলু, শিম, বরবটি, টমেটো, বেগুন, মিষ্টি কুমরা, লাউসহ নানা ধরণের সবজি চাষ হয়। এ উপজেলায় প্রখ্যাত ব্যক্তিদের মধ্যে সাহিত্যিক আবুল ফজল, প্রাক্তন এমএনএ ও সংসদ সদস্য এম ছিদ্দিক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আনোয়...

 

উদ্যোক্তার বার্তা

ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর স্বপ্ন নয় বাস্তবতা। বাংলাদেশ এখন বিশ্বের কাছে এক রুল মডেল। প্রযুক্তিগতভাবে যে মানুষগুলো দক্ষ তারা দেশের জন্য বড় সম্পদ। স্বাধীনতার ৪২ বছর পর বর্তমান সরকারের একটি বড় সিদ্ধান্ত হচ্ছে ২০১৪ সালে দেশের ৩০টি উপজেলায় ৩০টি কমিউনিটি ই সেন্টার স্থাপন করা। আর সাতকানিয়া কমিউনিটি ই সেন্টার হচ্ছে তাদের একটি। সাতকানিয়া কমিউনিটি ই সেন্টার দেশের সকল ই সেন্টারগুলো থেকে আলেদা বৈশিষ্ট ধারণ করে থাকে। সেন্টারটির প্রথমথেকেই অর্থাৎ ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে এই সেন্টারের উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ শুরু করি। আমার লেখা ২টি বই দিয়েই এই সেন্টারের ট্রেনিং কার্যক্রম পরিচালনা হয়। সাতকানিয়া উপজেলার সকল স্তরের মানুষ ও প্রতিষ্ঠানকে কম সময়ের মধ্যে আইটি সেবা দেয়ার জন্য নিরলসভাবে কাজ কর...