উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর বার্তা


চট্টগ্রাম জেলার দক্ষিণে বিদ্যমান উপজেলাসমূহের মধ্যে আয়তনে সর্ববৃহৎ উপজেলা সাতকানিয়া। পাহাড় ও সমতল ভূমি সম্বলিত ২৮০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের সাতকানিয়া উপজেলায় ১টি পৌরসভা ও ১৭টি ইউনিয়ন রয়েছে। বাংলাদেশের একমাত্র Border Guard Training Center & School এ উপজেলায় অবস্থিত। এ উপজেলায় দোহাজারী-কালিয়াইশ ১০০ মেগাওয়াট ডিজেল চালিত বিদ্যুৎ প্লান্ট রয়েছে। সাঙ্গু ও ডলু নদী এখানকার দুটি বড় নদী। ডলু নদীর ভাঙ্গন এবং আকস্মিক বন্যা সাতকানিয়ার অন্যতম প্রধান সমস্যা। কৃষি প্রধান এ উপজেলায় উন্নতমানের গোল আলু, শিম, বরবটি, টমেটো, বেগুন, মিষ্টি কুমরা, লাউসহ নানা ধরণের সবজি চাষ হয়। এ উপজেলায় প্রখ্যাত ব্যক্তিদের মধ্যে সাহিত্যিক আবুল ফজল, প্রাক্তন এমএনএ ও সংসদ সদস্য এম ছিদ্দিক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আনোয়ারুল আজিম আরিফ, চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী, বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা মরহুম ডা: বিএম ফয়জুর রহমান, জনাব আবু ছালেহ, কলামিস্ট ও প্রাবন্ধিক আবুল মোমেন এর নাম উল্লেখযোগ্য। একবিংশ শতাব্দীকে সামনে রেখে সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে একটি সন্ত্রাসমুক্ত সমাজ, সমৃদ্ধ প্রাকৃতিক পরিবেশ, তথ্য প্রযুক্তিতে অগ্রসর ও উন্নয়নমুখী আলোকিত সাতকানিয়া গড়ার লক্ষ্যে সকলের আন্তরিক সহযোগিতা নিয়ে উপজেলা প্রশাসন, সাতকানিয়া নিরলস ভাবে কাজ করে চলেছে। উপজেলা প্রশাসনের প্রচেষ্টায় সাতকানিয়া কমিউনিটি ই সেন্টার সর্বদা আন্তরিক সহযোগিতা প্রদান করে আসছে। এ উপজেলার তরুন প্রজন্মের মধ্যে সর্বাধুনিক তথ্য প্রযুক্তিগত জ্ঞান ও দক্ষতা ছড়িয়ে দিতে সাতকানিয়া কমিউনিটি ই সেন্টারের ভূমিকা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয় ও অনুকরনীয়। এ উপজেলার তরুণ উদ্যোক্তা জনাব মো: বেলাল হোসেন কর্তৃক উদ্ভাবিত সিইসি ব্যবস্থাপনা সফটওয়্যারটি দেশের সকল সিইসি ও ইউডিসির জন্য একটি আদর্শ সফওয়্যার হতে পারে বলে আমার বিশ্বাস। আমি সাতকানিয়া কমিউনিটি ই সেন্টারের উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করছি। মোহাম্মদ মোবারক হোসেন